লক্ষ্মীপুরে নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ধর্ষণ, ধামাচাপায় মরিয়া মাতব্বররা

জমিন রিপোর্টারঃ লক্ষ্মীপুরে নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী জৈনকা জাহান নামে এক কিশোরী ধষিত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ০৩ মাসের গর্ভবতী এই কিশোরীর বিষয়টি ধামাচাপা দিতে মরিয়া হয়ে উঠছে স্থানীয় মাতাব্বার কাশেম পাটোয়ারী, মুরাদ, মঈন ও এক শ্রেনীর নামধারী শালিশদ্বারগন। কিশোরীর স্থায়ী ঠিকানা হলো লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা ২নং দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নে ৮নং ওয়ার্ডে হাবিব উল্যা হাজী নতুন বাড়ীর। কিশোরী দক্ষিন হামছাদী গৌপিনাথপুর চম্পাকলি উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী।

এঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড সমসেরাবাদ এলাকায়।

অপরদিকে কিশোরীর ধর্ষণের ক্লু উদঘাটনে মাঠে পুলিশ কাজ করছে বলে জানিয়েছেন লক্ষ্মীপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জসীম উদ্দীন।

ধর্ষিত কিশোরী সবুজ জমিনকে জানান, তার খালার অসুস্থতার খবর শুনে তাকে দেখতে খালার বাড়ীতে বেড়াতে যাই। গভীর রাতে লম্পট খালু ভূট্রো ড্রাইবার তাকে বিবস্ত্র করে ভিবিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে অনৈতিক কাজ করে। এর পরপরই মেয়েটি শাররিক অবনতি দেখা দিলে তার মা ও স্থানীয় মুরাদ নামে এক লোককে বিষয়টি অবগত করে।
এ বিষয়টি নিয়ে বুধবার রাত ১০টা একটি বৈঠক করেন স্থানীয় মাতাব্বররা। মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে রফাদফা করার লক্ষ্যে একটি ক্লিনিকে কিশোরীর গর্ভের সন্তান নষ্ট করার সত্ত্বে সালিশদার গন বিষয়টি মিমাংসা করেন।
এদিকে জানতে চাইলে আবুল কাশেম মাতাব্বর জানান, কিশোরীর গর্ভবতীর বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, খালুর বাড়ীতে বেড়াতে গেলে খালু জোর করে আমার সাথে খারাপ কাজ করে। মেয়েটি বর্তমানে তার নানার বাড়ীতে রয়েছে।