লক্ষ্মীপুরে নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুর অভিযোগ মনিরের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে নির্মাণাধীন বসতঘর ভাংচুরের অভিযোগ মনির গংদের বিরুদ্ধে করেছেন সাইফুল আলম। মঙ্গলবার সকালে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। এসময় মনির গংদের হামলায় ৪জন নারী আহত হয়েছে। আহতদেরকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান সাইফুল আলম।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের শাহাপুর রাজবাড়ির আব্দুল মালেকের ছেলে খোরশেদ আলমের সাথে একই বাড়ির মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে মনির হোসেনের সাথে জমি নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। এর সূত্র ধরে নিজেদের জমিতে খোরশেদ আলমের ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম বসত ঘর নির্মাণ করতে গেলে মনিরের পরিবার বাধা দেয়। এতে উভয়পক্ষের মাঝে বাকবিতণ্ড হয়। পরে প্রতিপক্ষ মনিরের পরিবার ক্ষীপ্ত হয়ে ২০/২৫ উশৃংখল লোকজন নিয়ে খোরশেদ আলম ও তার ছোট ভাইয়ের পরিবারের উপর হামলা চালায়। এসময় তারা নির্মানাধীন বসতঘর ও পাশ্ববর্তী তাদের অস্থায়ী ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এতে তাদের প্রায় তিন লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে দাবি করে ক্ষতিগ্রস্ত সাইফুল ইসলাম।
সাইফুলের বড় ভাই খোরশেদ আলম বলেন, মনিররা যে জমি নিয়ে মামলা করেছে তাতে ১৪৪ধারা জারি রয়েছে। আমার ছোট ভাই সেই জমিতে বসতঘর নির্মাণ করছে না, সে আমাদের পৈত্রিক জমিতে বসতঘর নির্মান করছে। কিন্তু মনির প্রভাবখাটিয়ে সাইফুলের নির্মানাধীন বসতঘর ভাংচুর করে। এসময় আমার পরিবারেও উপর হামলা চালায়। এতে আমার বাবা সহ ৪জন আহত হয়েছে।
এ ঘটনায় থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগের খবর পাওয়া গেছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মনির বলেন, ঐ জমিতে আদালত ১৪৪ ধারা জারি করেছে। কিন্তু খোরশেদ আলম সহ তার ভাইয়েরা আদালতে নির্দেশনা অমান্য করে জোর করে জমি দখল করতে চাইছে। এতে বাধা প্রদান করলে আমার পরিবারের লোকজনের উপর তারা হামলা চালায়।

স্থানীয় মহিলা কাউন্সিলর শাহিনুর আক্তার বলেন, এদের এ জমি নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলছে। আমরা সমাধানের চেষ্টা করছিলাম। সমাধানের শেষ মুহুর্তে এসে ঘর নির্মাণ করে সাইফুল। মনিরের তাদেও বিষয়টি জানালে তারা দুই কাউন্সিলর ঘটনাস্থলে আসার পুর্বেই মনির লোকজন এনে তাদেও ভবনের নির্মাণকৃত ইট খুলে পেলে। এনিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে তারা।
১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোস্তফা পাটোয়ারি বলেন, খোরশেদরা মনিরদের চলাচলের রাস্তা পরিষ্কার না করেই ঘর নির্মানের কাজ শুরু করে। এতে মনির বাধা দিলে উভয় পক্ষের মাঝে হাতাহাতি হয়।
লক্ষ্মীপুর সদর থানার এসআই আবুল কালাম মোবাইল ফোনে জানান, খবর ঘটনাস্থলে গিয়ে জানাযায়, সাইফুল আলম ও মনিরদের মধ্যে জমি জামা নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলর উপস্থিতিতে সিদ্ধান্ত হয় যে, মনিরের চলাচলের রাস্তা পরিস্কার করে পাকা ঘর নির্মাণ করবে সাইফুল কিন্তু পরবর্তীতে রাস্তার কাজ না করে ভবন নির্মাণ করতে গেলে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।