আইন পেশা আর বাসা ভাড়াই আমার সংসার চলে-এড.নয়ন

সবুজ জমিন: আইন পেশা এবং বাসা ভাড়া বাবদ যা আয় হয় তা দিয়েই আমার সংসার চলে। লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগে টানা ৬ বছরের এ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমার কোন ব্যাংক ব্যালেন্স নেই। ব্যাংকে উল্লেখযোগ্য কোন টাকা নেই। আমার উপর লক্ষ্মীপুরের ব্যবসায়ীদের কোন অভিযোগ নেই। অভিযোগ তো দূরের কথা তারা আমার ব্যপারে অত্যন্ত সন্তুষ্ট। কেন না আমি কখনো তাদের কাছ থেকে চাঁদাবাজী করিনি। এমনকি আ’লীগ পন্থী ব্যবসায়ীদের কাছ থেকেও কোন অনুদান চাইনি। ১২ ডিসেম্বর সন্ধায় লক্ষ্মীপুর সাংবাদিক কল্যাণ সংস্থার কার্যকরি পরিষদ ও সাধারণ সদস্যদের সাথে এক আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন। এসময় তিনি আরো বলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দলের মিছিল, মিটিং কিংবা সমাবেশের খরচ বাবদ কিংবা অন্য কোন খরচ বাবদ লক্ষ্মীপুরের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কখনো একটি পয়সাও নেননি।
তিনি লক্ষ্মীপুর সাংবাদিক কল্যাণ সংস্থার সাংবাদিক দের উদ্দেশ্যে বলেন কলম সৈনিকরা সমাজের দর্পন, আমি আপনাদের কাছে সমাজের অসংগতি/ অনিয়ম গুলো বস্তুনিষ্ঠ ভাবে লিখনির মাধ্যমে তুলে ধরবেন ।

এ-সময় সাংবাদিক দের পক্ষথেকে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সংস্থার সহসভাপতি মফিজুর রহমান মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক, ইত্তেফাকের প্রতিনিধি আব্দুল মজিদ নেহাল ও সংস্থার সভাপতি, দৈনিক জনতার স্টাফ রিপোর্টার ভি বি রায় চৌধুরী।
সাংবাদিক দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, লক্ষ্মীপুর সাংবাদিক কল্যাণ সংস্থার কোষাধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর পাটোয়ারী, রায়পুর প্রেসক্লাবের সহসাধারণ সম্পাদক সোহেল আলম, নির্বাহী সদস্য নাঈম কামাল ও ফয়সাল কবির।
আরো উপস্থিত ছিলেন সদস্য এস এম জাকির হোসেন, মোঃ সোহেল হোসেন, আমজাদ হোসেন, নুর মোহাম্মদ সহ প্রমুখ।
আলোচনায় শেষে সভায় সভাপতি ভি বি রায় চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ নেহাল এডভোকেট নুরুউদ্দিন চৌধুরী নয়ন কে লক্ষ্মীপুর সাংবাদিক কল্যাণ সংস্থার উপদেষ্টা হওয়ার প্রস্তাব করিলে তিনি সমর্থন করেন।