লক্ষ্মীপুর আ.লীগ নেতাকে মারধর করায় ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা

লক্ষ্মীপুর আ.লীগ নেতাকে মারধর করায় ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর আওয়ামীলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের ওপর হামলা ও বসত ঘর ভাঙচুর লুটপাট করার অভিযোগে ভূমিদস্যু আব্দুর রবগং সহ ৮ জনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার (১৯ অক্টোবর) আহতের স্ত্রী মাহফুজা বেগম (লাকী) বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

এতে বিবাদী করা হয়েছে, সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়ন মাহাদেবপুর গ্রামের আলী রাজা পাটওয়ারী মৃত আজিজুর রহমানের পুত্র আশ্রাফুর রহমান বাবুল ও আব্দর রব, আব্দুল মতিন পাটওয়ারীর পুত্র সোহাগ ও আবু জাফর পলাশ, মোহাম্মদ বেপারীর পুত্র আরমান হোসেন, ইসমাঈল বেপারীর পুত্র আজাদ হোসেন, পশ্চিম লক্ষ্মীপুর গ্রামের দুলামিয়ার পুত্র রিফাত এবং ফজলুল করিমের পুত্র বেল্লাল হোসেন অনিক।

মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ আগস্ট (শনিবার) সকালে আবদুর রব সোহাগ ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের নিয়ে দালাল বাজারের মাহাদেবপুর গ্রামের ৩নং ওয়ার্ডে আলী রাজা পাটওয়ারী ওয়াক্ফ এষ্ট্রেট জামে মসজিদের ভূমি দখল করার উদ্যেশ্যে যায়। এ সময় মসজিদের মতোয়াল্লি ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাধা দিলে তার উপর হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। হামলাকারীরা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র দিয়ে জাহাঙ্গীরকে কুপিয়ে জখম করে। এতে রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। পরে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে তাকে বসত ঘরে নিলে হামলাকারীরা পুনরায় সেখাকে তাকে মারধর করে। এ সময় হামলাকারী অনিক ও রিফাত আগ্নেয়াস্ত্র ঠেকিয়ে তাকে হত্যার হুমকি দেয়।

বাদি তার লিখিত অভিযোগে আরও উল্লেখ করেন, হামলাকারীরা তার ঘরের মূল্যবান মালামাল লুট ও ভাঙচুর করে নগদ এক লাখ ২০ হাজার টাকা লুটে নেয়। পরে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

খবর পেয়ে দালাল বাজার বিট পুলিশের ইনচার্জ পুলেন বড়–য়া ঘটনাস্থলে গিয়ে জাহাঙ্গীরকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

বাদি মাহফুজা বেগম বলেন, ভূমিদস্যু আব্দুর রবগং ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী আরমান, আজাদ, বেলাল হোসেন অনিকসহ ৩০-৪০ জনকে ভাড়া করে ওয়াক্ফ এস্ট্রেট জামে মসজিদের জমি দখল করার জন্য আসে। বাধা দেওয়ায় তারা আমার স্বামীকে কুপিয়েছে এবং স্ট্রিলের পাইপ দিয়ে পিটিয়ে তার বাম হাত ভেঙে দেয়। সে এখন গুরুতর অবস্থায় সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। আমি এ ঘটনায় আইনের আশ্রয় নিয়েছি। হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজজুর রহমান মিয়া বলেন, জাহাঙ্গীর আলমকে মারধরের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা হবে।