৬নং কেরোয়া ইউপি উপ-নির্বাচনে আলোচনায় বায়েজীদ ভূঁইয়া

সবুজ জমিন: লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার ৬নং কেরোয়া ইউনিয়নে উপ-নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা হয়নি এখনও। এর মধ্যেই শুরু হয়েছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ। দলীয় মনোনয়ন পেতে জেলা নেতাদের নজর কাড়ার চেষ্টায় আছেন তাঁরা। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখছেন।

পাশাপাশি দলীয় মনোনয়নের প্রত্যাশায় নিজ নিজ পক্ষে নেতাকর্মীদের সংগঠিত করার তৎপরতাও অব্যাহত রেখেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। সম্ভাব্য প্রার্থীরা এলাকায় ভোটারসহ এলাকাবাসীর সাথে কুশল বিনিময়ের মধ্যদিয়ে নির্বাচনী গণসংযোগ ও ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দেখা যায়।

তাদের মধ্যে জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সাবেক ছাত্র নেতা,ও ভূঁইয়া পরিবারের সন্তান বায়েজীদ ভুঁইয়া দলীয় ভোটাদের মাঝে আলোচনায় রয়েছেন।রায়পুর উপজেলার ৬নং কেরোয়া ইউনিয়নের নয়টি ওয়ার্ডে বায়েজীদ ভুইয়ার পক্ষে নেতা-কর্মীরা সভা- মিছিলে ও মোটনশোভা যাত্রাসহ গনসংযোগে ব্যাস্ত রয়েছেন।মহামারি করোনার ভাইরাসের প্রথম থেকে এই পর্যন্ত অসহায় জনসাধারণ মাঝে খাদ্য সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

স্থানীয় সূত্র জানা যায় , আওয়ামী লীগের সঙ্গে বায়েজীদ ভুঁইয়ার পরিবারের ঐতিহাসিক সম্পর্ক। তার বড় ভাই’রয়ের শশুর সদর আসনের সাংসদ ও সাবেক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান কামাল। সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী বায়েজীদ ভুঁইয়াকে ভালো মানুষ এবং রাষ্ট্রবিরোধী কোন কাজে জড়িত নাই বলে রায়পুর থানা থেকে বিশেষ প্রতিবেদনও জমা দেয়া হয়েছে।

দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী বায়েজীদ ভুঁইয়া জানান, আমি জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক হিসেবে দীর্ঘদিন সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। আওয়ামী লীগের রাজনীতি সাথে আমাদের পরিবারের দীর্ঘদিন জড়িত । আমি মনে করি দলীয় মনোনয়ন আমাকে দেয়া হলে বিজয় শতভাগ সুনিশ্চিত।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ওই ইউপির চেয়ারম্যান শাহজাহান কামাল করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন। নিয়ম রয়েছে- জনপ্রতিনিধি মারা গেলে তিন মাসের মধ্যে উপ-নিবার্চন করতে হবে। কিন্তু স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা না আসায় নির্বাচন কমিশন এখনো উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেননি।