লক্ষ্মীপুরে স্বামী-স্ত্রীর বিচ্ছেদের পর স্বামীর চোখ উপড়ে ফেলে প্রেমিক

সবুজ জমিন প্রতিবেদক: লক্ষ্মীপুরে পূর্ব প্রেমিকা সুমা আক্তার কে বিয়ে করতে না পেরে তারই জের ধরে ইব্রাহিম খলিল হেলাল নামে এক যুবকের চোখ উপড়ে ফেলে সাবেক প্রেমিক শামিম-ইমন সহ কয়েকজন উশৃংখল যুবক। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার বিকাল ৫টা ২০ মিনিটে সদর উপজেলার ২নং দক্ষিন হামছাদী ইউনিয়নে পুর্ব গঙ্গাপুর গ্রামে ৫নং ওয়ার্ডে । এখানে ক্ষ্যান্ত না হয়ে হেলালের বাড়ীতে বসতঘরে হামলা চালিয়ে জানালার গ্লাস ভাংচুর করে শামিম ও তার সহযোগীরা। এঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শামিম ও ইমন সহ ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে হেলালের বাবা আব্দুল হাসেম মাস্টার বাদী হয়ে 10 জুন 2020ইং বুধবার

লক্ষ্মীপুর মডেল থানায় এজাহার দায়ের করেন। বিবাদী শামিম পিতা আব্দুর রব, সাং পশ্চিম গঙ্গাপুর, ওয়ার্ড-০৪।
আব্দুল হাসেম প্রতিবেদককে জানান, শামিম ও ইমন বখাটো প্রকৃতির ছেলে, প্রতিনিয়ত নেশা সেবন করে আমার ছেলে হেলালকে পথে মধ্যে গালমন্দ করে । শক্রবারে বিকালে আমার ছেলে ইব্রাহিম খলিল হেলাল আসার সময় তাকে গালমন্দ করে বলে সুমাকে তো শেষ পর্যন্ত রাখতে পারলিনা। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথাকাটির একপর্যায়ে শামিম- ইমন সহ তাদের সহযোগিরা লোহার রোড দিয়ে হেলালকে বেদম প্রহার করে । এতে হেলাল অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটে পড়লে চুরি দিয়ে হেলালের একটি চোখ উপড়ে ফেলে শামিম। এসময় আশপাশের লোক এসে জড়ো হলে বখাটো ছেলেরা ঘটনাস্থল থেকে দ্রুতগতিতে চলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন হেলালকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে হেলালের অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ঢাকা চক্ষু হাসপাতালে রেপার করে। সেখানকার কর্তব্যরত ডাক্তার জানান, হেলালের একটি চোখ নস্ট হয়ে গেছে। সে চোখে নতুন একটা মারবেল প্রকৃত লাগাতে হবে।
আব্দুল মাস্টার আরো জানান, দেড় বছর পুর্বে পাশবর্তী জাহাঙ্গীরের মেয়ে সুমা আক্তার কে বিয়ে করে তার ছেলে হেলাল। বিয়ের পরে হেলাল জানতে পারে সুমা গোপনীয় ভাবে তার সাবেক প্রেমিক শামিমের সাথে যোগযোগ রাখছে। এনিয়ে তাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে জগড়া বিবাদ লেগে থাকতো। একপর্যায়ে হেলালের নিয়ন্ত্রনের বাহিরে চলে গিয়ে শামিমের সাথে সর্ম্পক গভীর করে সুমা। বিয়ের মাস চারেক পর তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে।
এ দিকে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে শামিমের মা সাংবাদিককে জানান, সুমা ও তার ছেলে শামিমের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল কিন্তু সুমার মা-বাবা গোপনীয় ভাবে হেলালের নিকট বিয়ে দিয়ে দেয়। কিন্তু মাস চারেক যাওয়ার পর তাদের বিয়ে ভেঙ্গে যায়। এ নিয়ে মাঝে মধ্যে আমার ছেলেকে দোষারপ করে হেলাল ও তার মা-বাবা। হেলালের চোখ উপিড়ে পেলছে শামিম এ বিষয়ে তিনি বলেন তার ছেলে শামিম এই কাজ করেনি। শত্রুতা উদ্ধার করিতে অন্য কেউ এই কাজ করতে পারে।
এ বিষয়ে লক্ষ্মীপুর সদর থানা অফিসার ইনচার্জ আজিজুর রহমান বলেন, ইব্রাহিম খলিল হেলালের বাবা একটি এজাহার দায়ের করছেন। অপরাধীকে আটক করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।