লক্ষ্মীপুরে সাঁকো পার হতে গিয়ে  কিশোরী ও শিশুর মৃত্যু

লক্ষ্মীপুরে সাঁকো পার হতে গিয়ে  কিশোরী ও শিশুর মৃত্যু

দৈনিক  সবুজ জমিন প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর রায়পুরে সাঁকো পারাপার হতে গিয়ে ডাকাতিয়ায় ডুবে কিশোরী ও শিশুর করুন মৃত্যু হয়েছে। পরে খোঁজাখঁজির প্রায় ৬ ঘন্টা পর বিকাল পাঁচটায় ফায়ার সার্ভিস ও ডুবুরিরা মেঘনা নদী থেকে শিশুদের মৃত দেহ উদ্ধার করে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরে-উপজেলার দক্ষীন চরবংশী ইউপির চরলক্ষ্মী গ্রামের ডাকাতিয়া নদীতে।

নিহত শিশুরা হলো-একই গ্রামের সর্দার বাড়ীর হারুন সর্দারের মেয়ে ও স্থানীয় বিদ্যালয়ের ৮ম শেনীর শিক্ষার্থী হালিমা আক্তার (১২) এবং একই এলাকার আখন বাড়ীর কাদির আখনের শিশু মেযে লামিয়া (৫)।

সন্ধায় নিহতদের-স্বজনরা জানায়, হালিমা ও লামিয়া দু’জনে পরিবারের সদস্যদের অগোচরে ডাকাতিয়া নদী পার হওয়ার সময় লামিয়া ডুবে যাওয়ার উপক্রম হলে তাকে বাঁচাতে এগিয়ে গিয়ে উদ্ধার করে কাঁদে তুলে উপড়ে আসার চেষ্টা করে হালিমা । শিশু লামিয়ার ভারসাম্য সইতে না পেরে হালিমাও নদীতে তলিয়ে যায়। এতে পরিবারের লোকজন তাদের দেখতে না পেয়ে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজির পর রায়পুর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তারা চাঁদপুরের ডুবুরি দলের সহযোগিতায় দুই কিশোরী ও শিশুর মৃত দেহ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে তুলে দেয়।

রায়পুর সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে চাঁদপুরের ডুবুরি দলের সহযোগিতায় ১২ বছরের কিশোরি ও পাঁচ বছরের শিশুকে চাঁদপুরের নদীর মোহনা থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক।।

চরবংশী ইউপি চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্ট ফরায়েজী বলেন, নদীতে গোসল করতে গিয়ে কিশোরী ও শিশুর ডুবে নিহতের ঘটনায় পরিবারের সাথে আমি মর্মাহত।

রায়পুর হাজিমারা ফাঁড়ী থানার পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ জানান, খবর পেয়ে নিহত দুই কিশোরী ও শিশুর মৃত দেহ দেখে পরিবারের সাথে আমিও মর্মাহত হয়েছি। নিহতদেরকে সন্ধায় তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।