সেনা সদস্য মিলনের মানবিক গুণাবলী

 

সবুজ জমিন ডেস্ক: মাহমুদুর রহমান মিলন সত্যিকারের একজন ভালো সেনাসদস্য, জীবনের শুরু থেকে তিনি মানবিক গুনাবলীর মধ্যে দিয়ে আল্লাহকে প্রতিনিয়ত স্বরণ করে আল্লাহর সৃষ্টি মানুষের উপকার সাধ্যমত করে মানুষের মাঝে বেঁছে থাকতে চান। পরকালের কথা চিন্তা করে তিনি কোরআন সুন্নাহ মোতাবেক নিজ জীবনকে পরিচালনা করে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে মুনাজাতে আল্লাহর নিকট কান্না করেন দেশ ও দেশের মানুষের জন্য। তিনি এবং তার পরিবারকে জান্নাতে নিয়ে যাওয়ার জন্য সর্বদায় ইবাদতে মগ্ন থাকেন। সত্যের প্রতি নিবেদিত প্রান বাংলাদেশের সার্ববোমত্ব রক্ষা করাই যার চিন্তা চেতনা তিনি হলেন লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা ১নং উত্তর হামছাদী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের বীরমুক্তিযোদ্ধা মো: আতিকুর রহমানের গর্বিত সন্তান মাহমুদুর রহমান মিলন।

স্থানীয় এলাকাবাসীর মতামত
মাহমুদুর রহমান মিলন একজন সত্যিকারের ভালো মানুষ, তাঁর সন্তান-সন্ততি ও স্ত্রীর প্রতি দয়ালু এবং নম্র থাকেন ও প্রতিনিয়ত মানবসেবা করাই তার প্রধান লক্ষ। তিনি তাঁর পিতা-মাতাকে ভক্তি করেন, এবং রক্তের সম্পর্ককে সম্মান করেন। তিনি মুসলিম উম্মাহকে ভালোবাস্নে এবং পৃথিবীর সকল মুসলমানকে জাতি- বর্ণ নির্বিশেষে ভাই এবং বোন মনে করেন । তিনি নারীদের সম্মান করেন।
মাহমুদুর রহমান মিলনএকজন সত্যিকারের ভালোমানুষ
মাহমুদুর রহমান মিলনএকজন সত্যিকারের ভালো মানুষ
মাহমুদুর রহমান মিলনএকজন সত্যিকারের ভালো মানুষ । তিনি মিথ্যা কথা বলেননা, কিংবা কাউকে ঠকান না। তিনি সামর্থ্যানুযায়ী ভালো খাওয়ার চেষ্টা করেন এবং শরীর চর্চা করেন। তিনি তাঁর ক্রোধ কে নিয়ন্ত্রণ করেন। তিনি অযথা গল্প-গুজব করেননা কিংবা কারো বিশ্বাস ভঙ্গ করেননা । তিনি কখনো কাউকে ব্যাঙ্গ বিদ্রুপ করেননা কিংবা কারো অন্তরে ব্যাথা দেওয়া থেকে বিরত থাকেন।

মাহমুদুর রহমান মিলন সচেতন মানুষ
মাহমুদুর রহমান মিলন সচেতন মানুষ। তিনি নিজেকে এবং নিজের বাসস্থানকে পরিস্কার- পরিচ্ছন্ন রাখেন। তিনি উত্তম পোশাক পরিধান করেন এবং সকল ধর্মের মানুষের প্রতিনিধিত্ব করে মানবের মাঝে বাঁছিবার চেষ্টা করেন। তিনি লোভী নন। তিনি যাকাত প্রদান করেন, তাছাড়াও দান-খয়রাত করেন, তিনি লক ডাউনে সময়ে তার নিজ এলাকায় হাজার খানেক অসহায় হতদরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করেন। মসজিদে মসজিদে মুসুল্লীদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী দেন। বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সেনা সদস্য মাহমুদুর রহমান মিলন জানেন মৃত্যুর পর এগুলো তিনি আবার ফেরত পাবেন।