লক্ষ্মীপুরে ৭৪ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা। আটক১০ জন কারাগারে

লক্ষ্মীপুর পুলিশ-যুবলীগের সংঘর্ষ ও সদর হাসপাতালে ভাংচুরের অভিযোগে পৌর যুবলীগের সাধারন সম্পাদকসহ যুবলীগের ৭৬ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনায় আটককৃত ১০জনকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।
এর আগে বুধবার দুপুরে হাসপাতালে চিকিৎসারত আ’লীগের এক নেতার উপর হামলা ঘটনায় পুলিশের সাথে যুবলীগের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশসহ ১০জন আহত হয় এবং যুবলীগের ১০ নেতাকে আটক করা হয়। পরে রাতেই সদর থানার এসআই আবদুল আলীম বাদী হয়ে যুবলীগের ২৪ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে আরো ৪০/৫০জনকে অজ্ঞাত আসামী করে মামলা দায়ের করেন।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, যুবলীগ নেতা মাহাবুবুল হক মাহবুব, রুপম হাওলাদার, ইকবাল হোসেন হিমেল ক্বারী, মিজানুর রহমান, আশিক মাহমুদ, আকিব খাঁন, রেজাউল ইসলাম, সাইফুদ্দিন, আজগর আলী ও মোহাম্মদ আলী। তারা সবাই উপজেলা ও পৌর যুবলীগের কমিটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা বলে জানিয়েছে পুলিশ। বুধবার দুপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের ১০জনকে গ্রেফতার করা হয়।
পুলিশ সুপার আসম মাহাতাব উদ্দিন জানান, পুলিশের কাজে বাধা, পুলিশ সদস্যদের মারধর এবং হাসপাতালে বিশৃংখলা ও ভাংচুর করার অভিযোগে ২৪ জনের নাম উল্লেখ করে আরো ৪০/৫০জনকে অজ্ঞাত আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় ১০জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে। অপরাধী যতবড়ই হোক। কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়।
প্রসঙ্গত, পূর্ব শত্রুতার জেরে বুধবার সকালে সদর উপজেলার লাহারকান্দি ইউনিয়নের আটিয়াতলী গ্রামের আওয়ামী লীগ কর্মী দেলোয়ার হোসেন লাহারকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমানকে একটি ছোরা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে।

এ খবর পেয়ে ফজলুর রহমান কে সদর হাসপাতালে চিকিৎসারত দেখতে যান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগ সভাপতি একে এম সালাহ উদ্দিন টিপু।