বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে লক্ষ্মীপুরের ৪টি সংসদীয় আসনের ভোট গ্রহণ সম্পুর্ণ

 

সবুজ জমিন ডেস্ক: লক্ষ্মীপুরে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিক্ষিপ্ত সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে জেলার ৪টি সংসদীয় আসনের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে।

কেন্দ্রে কেন্দ্রে আওয়ামী লীগসহ সাধারণ মানুষের সরব উপস্থিতি থাকলেও বিএনপির নেতাকর্মীদের তেমন দেখা যায়নি।
অনেক কেন্দ্রে বিএনপির এজেন্ট ছিল না। তবে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীরা অভিযোগ করেছেন তাদের এজেন্ট ও কর্মীদের হামলা-মামলায় এলাকা ছাড়া করে রাতেই ভোট কেটে নিয়েছে সরকারি দলের নেতাকর্মীরা। পুনরায় ভোট অনুষ্ঠানের দাবি করেছেন কেউ কেউ।

জানা যায়, বেলা ১১ টায় লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর ও সদর আংশিক) আসনের পশ্চিম নন্দনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও পুলিশের মধ্যে ত্রিমুখী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়।

এসময় বিএনপি কর্মীরা পুলিশকে বহনকারী দুটি গাড়ি (মাইক্রো ও লেগুনা) ভাঙচুর করে লেগুনাতে অগ্নিসংযোগ করে। একই সঙ্গে একটি ব্যালট বাক্স ছিনতাই ও আপেল প্রতীকের নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর, বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি বিনষ্ট করে তারা। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আধা ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর যথারীতি ভোট গ্রহণ চলে এ কেন্দ্রে।

এছাড়া পার্বতীনগরের মকদ্দজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সালাহ উদ্দিনকে মারধর করে বিএনপির কর্মীরা।

টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এছাড়া শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটৎ গ্রহণ শেষ হয় অন্য ৩টি আসনে। তবে এসব আসনের অন্তত ১০টি কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, আওয়ামী লীগ ও নৌকার সমর্থকদের সরব উপস্থিতি রয়েছে কেন্দ্রে।

নারী ও পুরুষ ভোটাররা লাইনে দাঁড়িয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। তবে বিএনপি-জামায়াতের নেতা-কর্মীদের তেমন চোখে পড়েনি। বেশির ভাগ কেন্দ্রে ঐক্যফ্রন্টের এজেন্টও ছিল না।

এদিকে দুপুর ১টার দিকে লক্ষ্মীপুর-৩ সদর আসনের প্রার্থী শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি গণমাধ্যমকে জানান, রাতে ভোট ডাকাতি হয়েছে। নির্বাচন কমিশনে এমন অভিযোগ করে এ আসনে পুনঃভোটের দাবি জানানো হয়েছে। তার এজেন্ট ও বিএনপি নেতাকর্মীদের হামলা-মামলায় এলাকা ছাড়া করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

একই অভিযোগ লক্ষ্মীপুর-২ আসনের ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী আবুল খায়ের ভুঁইয়ারও।

লক্ষ্মীপুর-৪ রামগতি আসনের ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী আ স ম আব্দুর রব নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন বলে দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়। বিকাল ৩টায় জেলা জেএসডি’র সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল মুঠোফোনে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, নির্বাচনের দিন সকালে নির্বাচন কমিশনের কাছে ৩৫টি কেন্দ্রে রাতের বেলা ভোট কেটে নেওয়া হয়েছে এমন একটি অভিযোগ করা হয়। কিন্তু কোন প্রতিকার না পাওয়ায় আ স ম রব পুনঃভোট অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়ে ভোট বর্জন করেছেন বলে জানান তিনি।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনিতে জনগণের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণে দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, জেলার ৪টি আসনে মোট ২৫ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নেন।