রায়পুরে পাপুলের গণসংযোগে আ.লীগের নেতাকর্মীরা চাঙ্গা

সবুজ জমিন

মানবিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সব মহলে ইতিবাচক ইমেজ তৈরিতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন কাজী শহীদ ইসলাম পাপুুল । ভোটার ও নেতাকর্মীদের অনেকেই মনে করেন, এ আসনটি পুনরুদ্ধারে পাপুলের মতো শিক্ষিত ও মানবহিতৈষী প্রার্থী প্রয়োজন আছে। এমপি হলে এলাকার মানুষ তাকে পাশেও পাবে। পাপুলের গণসংযোগে দলের নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হয়ে উঠেছেন।

কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তার মালিকানাধীন মারাফী কুয়েতিয়া গ্রুপ অব কোম্পানিতে প্রায় ২০ হাজার বাংলাদেশি কাজ করেন। তিনি প্রতি বছর মোটা অঙ্কের রেমিট্যান্স দেশে আনেন। এ ছাড়া প্রতি বছর শীতে লক্ষ্মীপুর সদরসহ রায়পুরের ৬০ হাজার মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র ও ঈদে ৫০ হাজার শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণ করেন। অসচ্ছল মানুষের কর্মসংস্থানে ১৫০টি সেলাই মেশিন দিয়েছেন।

রায়পুরে জনগণের সেবা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ১৭০ গ্রাম পুলিশকে সাইকেল এবং থানা পুলিশকে পিকআপ ভ্যান দিয়েছেন। মানুষের জরুরি স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ ও রায়পুর পৌরসভাকে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসংবলিত দুটি অ্যাম্বুলেন্স দিয়েছেন। রায়পুরের স্কুল-কলেজ, মক্তব, মসজিদ ও মাদ্রাসার ইমাম-শিক্ষকদের কল্যাণে দিয়েছেন ৭০ লাখ টাকা অনুদান। সেলিনা-শহিদ ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে অসহায় মানুষের চিকিৎসা, পুনর্বাসন, এতিমদের কর্মসংস্থান এবং বিয়েতে সহযোগিতা করে আসছেন। দুর্গাপূজায় রায়পুরের প্রতিটি মণ্ডপে ২৫ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছেন এবং পূজারিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে সরকারের উন্নয়ন বার্তা প্রচার করেছেন। এসব কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে পাপুল রায়পুরের গণমানুষের নেতায় পরিণত হয়েছেন বলে মনে করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।পাপুল ভাইয়ের সালাম নিন
আপেল মার্কায় ভোট দিন